প্রচ্ছদ বরিশাল জেলা

ছুটি পেয়ে বরিশালসহ দক্ষিণাঞ্চলে দূর্ভোগের মধ্যে অগনিত মানুষ

দ্বীপকন্ঠ নিউজ ডেস্কঃ

বরিশাল সহ দক্ষিাণাঞ্চলে কোভেল প্রানঘাতী ভাইরাস সংক্রমন কারনে সপ্তাহব্যপি ছুটি কাটাতে কর্মস্থলের স্থান ঢাকা ছেড়ে গ্রামের বাড়ীতে সময় কাটানোর আনন্দ পথে পথেই শেষ।

সিমাহীন দূর্ভোগ যানবাহন,দোকান পাঠ, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান সব কিছুই বন্ধ থাকার কারনে দূরদুরান্ত থেকে ছুটি আসা মানুষগুলো বরিশালের কেন্দ্রীয় নথুল্লাবাত বাস টারমিনাল এলাকায় গাড়ী থেমার পরই তাদের সেসকল যাত্রƒদের দূর্ভোগের ভিতর পড়েন।

আজ বুধবার (২৫ই) মার্চ বেলা ১১টার পর থেকেই বেশ কয়েকটি যাত্রীবাহী বাস মাওয়া থেকে কয়েকশত যাত্রী নিয়ে বরিশালে আসে।

যানবাহন নেই সবকিছুই বন্ধ এই অজুহাতে ২৭০ টাকারস্থলে প্রতিটি যাত্রীর কাছ থেকে ৫শত টাকা করে ভাড়া আদায় করে নেয়ার অভিযোগ করেন ছুটিতে আসা যাত্রীরা।

এসময় ঢাকা থেকে আসা ভাওফলগামী যাত্রী আঃ রহিম,মিজানুর রহমান,মোঃ মিঠু সহ বেশ কয়েকজন বিএম পরিবহন তাদের কাছ থেকে ৫শত টাকা ভাড়া আদায় করে নিছে।

অপরদিকে নথুল্লাবাদ জিয়া সড়ক মোড় থেকে বেশ কয়েকটি মিনি ট্রাক ভাড়া করে নিজ গন্তব্যতে ছুটে যাওয়ার জন্য হুমড়ি খেয়ে পড়তে দেখা যায়।

এছাড়া নগরীর বিভিন্ন স্থানে দু’একটি ছোটখাট হোটেল খোলা থাকার পরও তাদের ছিল না খাবার যারফলে ছোটখাট প্রতিষ্ঠানের দিন মজুর কর্মচারীরা হাতে টাকা থাকার পরও পাচ্ছে না খাবার

অন্যদিকে নগরীর চকবাজার,কাটপট্রি, গ্রিজ্জামহল্লা,কাকলীমোড় সহ বিভিন্ন এলাকার সকল প্রর্যায়ের শপিংমল,বিপণি বিতান ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার কারনে মনে হচ্ছে এটা এটা মনে হয় কোন যুদ্ধবিধ্বস্থ এলাকা।

অপরদিকে বরিশাল বিভিন্ন এলাকার নিম্ন আয়ের অটোচালক,ভ্যানচালক ওরিক্সা চালক সহ সাধারন দির-মজুর শ্রমীক শ্রেনীর মাঝে খাবার সংকট থাকার কারনে তাদের পরিবারের সদস্যদের মধ্যে চরম ক্ষোভ প্রকাশ বিরাজ করছে।

শহরের রসুলপুর কলোনী,পলাশপুর,চড়েরবাড়ি এলাকার কয়েকশত সাধারন দিন ভিত্তিক আয় করে থাকে দেখা সেসকল পরিবারের সদস্য এবেলা খেতে পারলে অপরবেলা তাদের খাবার থকিবে কিনা তা নিয়ে রয়েছে সন্দ্রেহ।

পাশাপাশি জেলা প্রশাসকের ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্টেটের গাড়ী বিভিন্ন স্থানে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে অভিযান অব্যাহত রেখেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *